মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

একটি বাড়ি একটি খামার

এক নজরে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প (জুলাই ২০১৩ পর্যন্ত) :
একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প জুলাই ২০০৯ থেকে জুন ২০১৪ মেয়াদ পর্যন্ত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ১০।১১।২০০৯ তারিখে একনেক কতৃক অনুমোদিত হয় এবং প্রকল্প ব্যয় নির্ধারণ করা হয় ১১৯৭ কোটি টাঁকা। প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশের ৪৮২ টি উপজেলার ১৯২৮ টি ইউনিয়নের ৯৬৪০ টি গ্রামের ৫,৭৮,৪০০ টি পরিবারের জীবিকা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ শুরু করা হয়।
প্রকল্পটির প্রথম পর্যায়ে ২০১০ সালের জুন থেকে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত গ্রাম সমিতি গঠন করা হয়েছে ১৭ হাজার ৩০০টি।যাতে উপকারভোগী পরিবারের সংখ্যা ১০ লাখ ৩৮ হাজার।আর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এ প্রকল্পে উপকারভোগীর সংখ্যা প্রায় ৫১ লাখ।সমিতির প্রতিটিতে সদস্য সংখ্যা সর্বোচ্চ ৬০ জন এবং সর্বনিম্ন ৪০ জন।৬০ সদস্যের সমিতি থেকে কয়েকজনকে নিয়ে গ্রুপ করা হয়।প্রতিটি গ্রুপ নিজেদের সুবিধা বা পছন্দ অনুযায়ী এবং যে এলাকায় যে ধরনের জীবিকা গ্রহণ করা সম্ভব সেটা করতে পারেন।এক্ষেত্রে হাঁস-মুরগির খামার, মৎস্য চাষ, দুগ্ধ উৎপাদন, মৌমাছি পালন, শস্য উৎপাদন, বনায়ন, উদ্যান সৃজনসহ নানা ক্ষুদ্রশিল্প রয়েছে।কর্মকর্তারা জানান, সমিতিগুলোতে সদস্যরা নিজেরা যে সঞ্চয় করেছেন, সরকারের পক্ষ থেকে ঠিক সমপরিমাণ অর্থ সমিতিগুলোতে জমা দিয়ে তহবিল করা হয়েছে।একই সঙ্গে সরকার ঘূর্ণায়মান ঋণ হিসেবে সমপরিমাণ টাকা দিয়েছে প্রতিটি সমিতিকে।এ হিসাবে 'একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পে'র আওতায় সমিতিগুলোতে এখন পর্যন্ত সঞ্চয় জমা হয়েছে ৩৫৫ কোটি টাকা।আবার সরকারের পক্ষ থেকে আরও ৩৫৫ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে সমিতিগুলোকে।আর ঘূর্ণায়মান ঋণ হিসেবে দেওয়া হয়েছে ৪৯০ কোটি টাকা।সব মিলিয়ে বর্তমানে প্রকল্পের আওতায় দরিদ্র মানুষের মোট তহবিলের পরিমাণ এক হাজার ৩৩২ কোটি টাকা।গ্রামে গ্রামে জীবিকাভিত্তিক ক্ষুদ্র খামার গড়ে উঠেছে ছয় লাখ ৮০ হাজারটি।প্রকল্পের আওতায় গত এক বছরে দরিদ্র পরিবারপ্রতি আয় বেড়েছে ১০ হাজার ৯২১ টাকা করে।প্রকল্প এলাকায় নিম্ন আয়ের পরিবারের সংখ্যা ১৫ শতাংশ থেকে তিন শতাংশে নেমে এসেছে।দারিদ্র্য হ্রাসের পাশাপাশি অধিক আয়ের পরিবারের সংখ্যা আগের চেয়ে ২২ দশমিক আট শতাংশ থেকে ৩১ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।
প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, দ্বিতীয় পর্যায়ে জুলাই-২০১৩ থেকে জুন ২০১৫ সাল পর্যন্ত এ প্রকল্পের আওতায় মোট ৪০ হাজার ৫২৭টি গ্রাম সমিতি গঠন করা হবে।এ হিসাবে এখন নতুন সমিতি গঠনের লক্ষ্য হচ্ছে ২৩ হাজার ২২৭টি।আগামী দুই বছরে মোট ২৪ লাখ ২৬ হাজার ৩৪০টি পরিবারকে প্রকল্পের আওতায় নিয়ে আসার কাজ চলছে।যাতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে উপকারভোগীর সংখ্যা হবে এক কোটি ২১ লাখ।দুই বছরে দুই লাখ ৮৩ হাজার ৭০০ ব্যক্তিকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।প্রকল্পের মেয়াদ পাঁচ বছর পূর্ণ হলে অর্থাৎ ২০১৫ সালে সরকারের দারিদ্র্য বিমোচন প্রকল্পের আওতায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর নিজস্ব তহবিল দাঁড়াবে তিন হাজার ১২৬ কোটি টাকায়।যা বর্তমানে এক হাজার ৩৩২ কোটি টাকা।
শতভাগ সাফল্য:
বর্ণিত লক্ষ্যসমূহ অর্জনের জন্য এ পর্যন্ত প্রকল্প অফিস, বি আর ডি বি এবং মাঠ প্রশাসন আন্তরিকভাবে কাজ করে আসছে। সর্বোপরি পল্লী উন্নয়ন এবং সমবায় বিভাগ হতে নিবিড় পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে যার ফলে প্রকল্পের কাজে শতভাগ সাফল্য অর্জন করা সম্ভব হয়েছে যা নিম্নরুপঃ
১। গ্রাম সমিতি গঠিত হয়েছে ১৭,০০০ যা লক্ষ্যমাত্রার ৯৯ %
২। উপকারভোগী নির্বাচন করা হয়েছে ১০,৩৮০০০ ( ৯৯ %)
৩। প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে ১,০৪,২৯৪ জনের (৯৯%)
৪। সদস্যদের নিজস্ব সঞ্চয় ২৬২ কোটি টাকার বিপরীতে উৎসাহ ঋণ প্রদান করা হয়েছে ২৬২ কোটি টাকা।
৫। সমিতি প্রতি প্রশিক্ষনত্তর সহায়তা বিতরণ ২৯২ কোটি টাকা।

এদেশের গ্রামীণ জনশক্তির উন্নয়নের মাধ্যমে অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে আওয়ামী লীগ সরকার বদ্ধপরিকর। আর এজন্যই “একটি বাড়ি, একটি খামার প্রকল্প”। কিন্তু শুধু সরকারই না, এজন্য দরকার আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা। তাতেই সমৃদ্ধ হবে বাংলার কৃষিভান্ডার। নতুনভাবে প্রাণ পাবে চিরায়ত বাংলার কৃষি। আমাদের কৃষির জয়তানে বিশ্ব থমকে যাবে, নতুন করে চিনবে কৃষি প্রধান বাংলাদেশকে।